Digital clock

Saturday, 6 April 2013

মামি এবং আমি


মামি এবং আমি এটা আমার জিবনের একটা সত্যি ঘটনা।
আমি তখন ইনতারমেডিয়েট এ
পরি এবং আমরা ঢাকাই থাকি।আমার দুই
মামা তাদের পরিবার
কে নিয়া গ্রামে থাকতো ।আমার বড়
মামা মাঝে মাঝে ঢাকার বাইরে যেত বেবসার কাজে। তারা সবাই
একটি ঘরে থাকতো ।মানে গ্রামের ঘর
গুলো যেমুন ঘরের বেতর আবার দুই-তিন
টা রম থাকে সেরকম।আমার বড় মামার
একটা মেয়ে আছে ৫ বছর।আর ছোট মামার
এখন ও হইনাই।আমি যত বার গ্রামে যেতাম তত বার ই বড় মামার
রুমে থাক্তাম।আমার মা ই বলত বড়
মামার রুমে থাকতে ।কারন
টা বুঝতে পারতাম ।আমার ছোট
মামা নতুন বিয়া করসে বলেই।এবার ও
বেরাতে যেয়ে যথারিতি বড় মামার রুমেই উতলাম।আজ বড় মামা বাসাই নেই
মানে বেবসার কাজে ঢাকার
বাইরে গেসে।সন্ধের পরে সবাই এক
সাথে খাওয়া-দাওয়া শেষ করে কিছু খন
গল্প করে ছোট মামা ছোট
মামি কে নিয়া তার রুমে চোলে গেল এবং আমি বড় মামার রুমে রএ গেলাম।
সাধারনত গ্রামের সবাই
তাড়াতাড়ি গুমালে ও আমি যেদিন
মামার বাড়ি থাকতাম সেদিন
মামা এবং মামি খুব
দেরি করে গুমাতো কারন আমি শহর এর ছেলে তাড়াতাড়ি গুমাতে পারিনা।
মামি আমাকে টেলিভিশন অন
করে দিয়ে সাঝতে বসলো।সেদিন
মামি সেলোয়ার কামিস পরা ছিল
এবং চুলে শেম্পু করা ছিল এমনেতেই
তাকে খুব সুন্দর লাগছিল।তার মদ্দে এবার একটু মেকাপ করল এবং ঠোট এ
হাল্কা গলাপি কালার লেপিসটিক
লাগালো।বড় মামির গায়ের রঙ
কালো ছিল বতে কিন্তু দেকতে চমতকার
ছিল। বয়স আনুমানিক ৩০ হবে লম্বা ৫
ফিত এর উপরে,দুদ গুলো ছিল বিশাল বড় বড় তবে একটু মোটা মানে সবকিছু
মিলিয়ে দেখার মত মাল।যাইহক
আমরা একটু গল্প করে সুয়ার জন্য
তৈরি হলাম খাটের এক
পাশে আমি মাঝখানে মামাত বন
এবং অন্য পাশে মামি।ঘরের লাইত এর সুইস টা মামির মাথার কাছেই ছিল।
এবার মামি লাইত বন্ধ করে আমার
সাথে নানা বিষয়ে গল্প করতে সুরু করল
এবং গল্পের মাঝখানে মামি একবার
লাইত অন করল তখন আমি দেকলাম মামির
বুকের উপর অরনা নাই ফলে তার দুদ দুটো পাহারের মত খাড়া হইয়া আছে।
আমি ডান পাস কাত হয়ে মামির গল্প
সুনে যাইতাছি কিন্তু মামি আমার
দিকে না ফিরে চিত হয়ে গল্প
বলে যাইতাসে।এবং মাঝে মাঝে লাইত
অন করতাছে তবে সেতা ৪ থেকে ৫ সেকেন্ড এর জন্ন।এক সময় আমি ঠিক
বুঝতে পারলাম মামি আমাকে তার
বিশাল পাহারের এর মত দুদ
দুটো কে আকিস্ত করার জন্যই এ
কাজটা করছে।সে বিভিন্ন গল্পের
ফাকে সময় বলতে লাগলো আজ বিকালে আমরা নাজমার সাথে গল্প করলাম
না?
হু ও কিন্তু ওর
জামাই কে ছেরে দিসে। কেন?
ওর জামাই এর একটা রোগ আছে। কুজা রোগ।যদিও ওর জামাই
ওকে অনেক ভালবাসতো।দেকতে ও খুব সুন্দর ছিল
নাজমা কে অনেক অনুরোধ করেছিল যেন
তাকে ছেরে না দেয়।কিন্তূ শেষ পর্যন্ত
ছেরে দিল। কুজা রোগ
মানে কি? এর অর্থ তুমি যান কিন্তু এখন না জানার ভান করছ।
আমি সত্যি করে বললাম আমি এর অর্থ জানিনা। নাজমার
গল্প বলতে বলতে আর দু একবার লাইত অন
করল এবং বন্ধ করল। এর পর মামি আমাই
বলল কুজা মানে তার সেক্স একে বারে কম নাজমাকে ঠিক মত
করতে পারে না। আর
একটা নারীর জিবনে সব চেয়ে বড় চাওয়া হল দাম্পত্য জিবনে সুখী হওয়া।
আমরা বাড়ি-ঘর, টাকা-
পইসা থেকে সেক্স টা কে বড় মনে করি।
মামি এই প্রথম আমার সাথে সেক্স বিষয়ে কথা বল্ল।
সাথে সাথে আমার
ছোটো ভাই খারাইয়া গেল।নাজমার গল্প বলতে বলতে আমাই জিজ্ঞাসা করল
তোমার পরিচিত কি ডাক্তার আছে আইসব
রোগ ঠিক করতে পারে? না কিন্তু
কেন? তোমার মামার ও একই সমস্যা তাহলে এত বছর
কিভাবে সংসার
করলেন? তোমার সাথে যে আমি এইসব ব্যাপারে ফ্রিলি কথা বলছি তুমি কি
কিছু মনে করছ? না......আমি কিছুই
মনে করছি না আপনে বলেন। তার
সমস্যা গত ৬ মাস ধরে।গত ৬ মাস আগে সে অসুখ এ পরছিল
তোমার কি মনে আছে?
হু তার পর থেকে এই অবস্থা। মামি যখন থেকে সেক্স
বিষয়ে কথা বলতে শুরু করেছে তখন
থেকে আর লাইট অন করে নাই।এরপর
প্রায় ৫ মিনিট কন কথা-বার্তা নাই আমিও চুপ মামিও চুপ
এবং ঘর অন্ধকার।
হঠাত আমি শুনতে পাইলাম মামি ফুফিয়ে ফুপিতে কাদছে।কিন্তু কোন
কথা বলছে না। তখন আমার
বাড়াটা একেবারে গরম হইয়া ছিল।
আমি শুধু মনে মনে ভাবতে লাগলাম মামি কি আমার সাথে দেহ
মিলন
করতে চাইছে নাকি শুধু মাত্র তার দুক্ষের কথা গুলো আমার সাথে সেয়ার
করছে।একবার ভাবলাম যেহেতু
সে ফুপিয়ে ফুপিয়ে কাদছে সেহেতু
সে তার দুক্ষের কথা গুলো মাত্র আমার সাথে সেয়ার
করছে আবার ভাবলাম
সে যদি শুধু তার দুক্ষের কথা আমার সাথে সেয়ার করত তবে শুরুর দিকে তার
বিশাল বিশাল দুধ
গুলো প্রতি আমাকে আকিস্ত করাতো না।
আমি আমার মনের সাথে খুব যুদ্ধ করতে লাগলাম।আমি শুরু থেকেই
কিন্তু
মামির দিকে কাত হয়ে শুয়ে ছিলাম যার ফলে আমার বাম হাত টা মামির প্রায়
বাম হাতের ডেনার কাছা-কাছি ছিল।
মামি তখন ও চিত হয়ে শুয়ে ছিল
এবং তখন ও কাদছিল।তারপর আমি বললাম গত ৬
মাসে কি আপনারা একবার ও মিলন
করেন নাই? এই প্রথম মামি আমার দিলে কাত হয়ে সুইলো এবং বলল ''আমার
সাথে মাঝে মাঝে মিলামেশা করে তবে
আমি অনেক জরা-জরি করার পরে।তাও
আবার সপ্তাই ১বার কি ২বার। এবং আমার উপরে ওঠার
সাথে সাথে তার
মাল আউত হইয়া যাই।বর্তমানে আমি খুব দুখী একটা মানুষ।'' সে আমার
দিকে কাত হয়ে সুয়ার ফলে তার বাম
হাত অথবা বাম দুধ আমার বাম হাতের
উপর পরল।আমি প্রথমে বুজতে পারিনাই এটা কি তার হাতের
ঢেনা নাকি তার
বিশাল বাম দুধ? আমি প্রথমে আমার আঙ্গুল গুলো নাড়াচাড়া করতে লাগলাম
খুবিই আস্তে আস্তে তারপর যখন
বুঝতে পারলাম এটা মামির দুধ তখন খুব
আস্তে একটা চাপ দিলাম দেকলাম মামি কিছুই বলল না আবার ও
একটা চাপ
দিলাম এইবার ও কিছু বলল না।তারপর সাভাবিক ভাবে আরও ৪/৫ টা টিপ
মারলাম আর এর মধধেই মামির
কান্না একেবারে থেমে গেছে।আমি যখন
মামির বাম দুধ টা ছেরে ডান দুধ টির দিকে হাত বারালাম
তখন মামি আমার
হাতটা ধরে ফেলল আর বলল এটা কনো দিনই সম্ভব না।

No comments:

Post a Comment